এমন বয়ান কাফকার মনেও নির্ঘাৎ ঈর্ষা জাগাত। ৭ই মে রাজ্যসভায় কেন্দ্রীয় কৃষিমন্ত্রী শরদ পাওয়ার জানালেন যে জানুয়ারি মাস থেকে বিদর্ভে মাত্র ছয়জন কৃষক আত্মহত্যা করেছেন। সেই একই দিনে ওই সময়ে মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী অশোক চভন বললেন আত্মহত্যা করেছেন ৩৪৩ জন। অর্থাৎ পাওয়ারের দেওয়া পরিসংখ্যানের চেয়ে ৫৭ গুণ বেশি। চভন বিদর্ভে অবস্থানকালে এই কথা বলেন। পাওয়ার রাজ্যসভায় এক প্রশ্নের লিখিত জবাবে ওই তথ্য উল্লেখ করেন। একই দিনে দুটি সংবাদই প্রকাশ করে প্রেস ট্রাস্ট অফ ইন্ডিয়া (পিটিআই)।

ধন্দে পড়ে গেলেন নাকি? তাহলে এবার এইটা দেখুন। মাত্র পাঁচদিন আগে, অর্থাৎ ওই একই সপ্তাহে খোদ রাজ্যসভায় কৃষি বিষয়ক রাষ্ট্রমন্ত্রী কে ভি থমাস বললেন সংখ্যাটা ২৩। তিনি এই তথ্য “মহারাষ্ট্র সরকারের” কাছ থেকে পেয়েছেন বলেও জানালেন। অথচ সেই সরকারের মুখ্যমন্ত্রী বলছেন সংখ্যাটা ৩৪৩। অন্যদিকে, পাওয়ার যখন সংখ্যাটা চারমাসে ‘মাত্র ছয়’ বলে জানাচ্ছেন তখন সেই সরকারের বিদর্ভ স্থিত বসন্তরাও নায়েক কৃষক স্বনির্ভর মিশনের পক্ষ থেকে জানানো হল, কেবল জানুয়ারি মাসেই আত্মহাত্যা করেছেন ৬২ জন কৃষক।

আচ্ছা বলুন দেখি, সরকারি সূত্রে প্রাপ্ত কৃষক আত্মহত্যা বিষয়ক তথ্যের মধ্যে ৫,৫০০ শতাংশ পার্থক্য থাকাটা আদৌ ঠিক কি? (আজ্ঞে, শ্রী পাওয়ারের দেওয়া তথ্যের চেয়ে শ্রী চভনের দেওয়া তথ্যের তারতম্য ঠিক এতটাই!)। তবে এই গেরোর এখানেই শেষ নয়। মহারাষ্ট্রের রাজস্ব মন্ত্রী, নারায়ণ রাণে রাজ্য বিধানসভায় এপ্রিল মাসে জানিয়েছেন, ২০০৬ থেকে বিদর্ভে আত্মহত্যা করেছেন ৫,৫৭৪ জন কৃষক। অথচ, সংসদকে জানানো হয়েছে যে এই বছর জানুয়ারি থেকে আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে মাত্র ছয়টি। শ্রী রাণের মতে ২০০৬ সাল থেকে সমগ্র রাজ্য মিলে এই সংখ্যা ৭,৭৮৬। অথচ, বিগত তিন বছরের জন্য সারা দেশের মোট কৃষক আত্মহত্যার সংখ্যা বাবদ শ্রী পাওয়ার যে ৩,৪৫০ সংখ্যাটি দিয়েছেন, শ্রী রাণে প্রদত্ত পরিসংখ্যানটি তার দ্বিগুণেরও বেশি।

PHOTO • V. Sudershan

পঞ্জাবের যে সব কৃষক আত্মহত্যা করেছেন তাঁদের পরিবারের সদস্যরা লোকরাজ সংগঠনের মাধ্যমে দিল্লিতে, কেন্দ্র ও পঞ্জাব সরকারের কৃষক বিরোধী নীতিসমূহের বিরুদ্ধে যে প্রতিবাদ সংগঠিত করেছিলেন, ২০০৮ সালের ৩১ জানুয়ারি গৃহীত এই আলোকচিত্রটি সেই প্রতিবাদ কর্মসূচির

আজব ব্যাপার — তিন বছরে সারা দেশে নাকি ৩,৪৫০? ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরোর তথ্য অনুসারে বিগত তিন বছরের, অর্থাৎ ২০০৬, ২০০৭ ও ২০০৮ সালের মোট পরিসংখ্যানটা ৫০,০০০ (সর্বশেষ বছরের পরিসংখ্যানের ভিত্তিতে)। জাতীয় স্তরে ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরোই (NCRB) কৃষক আত্মহত্যার পরিসংখ্যানের ক্ষেত্রে একমাত্র সুত্র। তাদের তথ্যই দেখাচ্ছে যে ১৯৯৭ থেকে ২০০৮ সাল অবধি ২০০,০০০ কৃষক আত্মহত্যা করেছেন। তাহলে, দেশের সংসদ কোথা থেকে তার প্রদত্ত তথ্য নিচ্ছে? আর কেনই বা আমরা এমনসব তথ্য পাচ্ছি যাতে এতখানি অসঙ্গতি? আর এতসব ধোঁয়াশা তৈরি হচ্ছে এমন তথ্য ঘিরে, যা কিনা দিতে সক্ষম দেশের একটিমাত্র সংস্থা। এটাও ভাবার বিষয় যে, মহারাষ্ট্রের বেলাতেই বিশেষ করে কেন এমন বিভ্রাট হয়?

একটু খতিয়ে দেখা যাক। কৃষক আত্মহত্যা সংক্রান্ত মহারাষ্ট্রের পরিসংখ্যানটিই সারাদেশের মধ্যে সর্বাধিক ভয়াবহ। একা এই রাজ্যেই ১৯৯৭ সাল থেকে ৪১,৪০৪ জন কৃষক আত্মহত্যা করেছেন। এর মধ্যে ২০০৬-২০০৮ সালের মধ্যে আত্মহত্যা করেছেন ১২,৪৯৩ জন। স্বাভাবিকভাবেই, এই তথ্য চাপা দেওয়ার মরিয়া অপচেষ্টাটাও এখানেই সবচেয়ে বেশি।

পুরো ব্যাপারটায় আদতে কৃষকদের নিয়ে কোনও মাথাব্যথা নেই। ২০০৬ সালে প্রধানমন্ত্রী বিদর্ভে যাওয়ার আগে পর্যন্ত রাজ্যের কোনও গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রী বিপন্ন গ্রামগুলিতে ঠিক এই কারণেই যাননি। যে সকল পরিবারে আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে, তাদের মধ্যে একটির সঙ্গেও অধিকাংশ মন্ত্রী আজও দেখাই করেননি। মানুষ তাঁদের কোন নজরে দেখছেন, তা নিয়ে এই মন্ত্রীদের কোনও ভাবনাচিন্তাই নেই। দিল্লির উচ্চতর নেতৃত্ব আত্মহত্যার ভয়াবহতায় চিন্তিত হয়ে পড়েছে দেখে এঁদের টনক নড়ল। আর ঠিক সেইজন্যই তাঁরা এখন পরিসংখ্যান নিয়ে কারচুপি শুরু করেছেন।

প্রথমে কৃষক আত্মহত্যা হিসাবে স্বীকৃতি পাওয়ার জন্য বিভিন্ন শর্ত খাড়া করা লল। ২০০৫ সালে দিগম্বর আগোসের আত্মহত্যার পর আমরা যখন অকুস্থলে হাজির হলাম, তখনই মালওয়াগড় ও ইয়াভতমলের মানুষজন এই প্রক্রিয়াটিকে নিয়ে ঠাট্টা-তামাশা শুরু করে দিয়েছিলেন। “আমরা আর শান্তিতে আত্মহত্যাও করতে পারব না,” সখেদে হেসে বলেছিলেন আগোসের এক প্রতিবেশী। “আর সেইসব সরকারি ফর্ম আর কাগজপত্র না পড়ে তো মোটেই মরা যাবে না যাতে [ক্ষতিপূরণ বাবদ পাওনার] সব নিয়মকানুন লেখা আছে।” আর একজনের বক্তব্য: “ওদের অনুসন্ধান পত্রে অন্তত ৪০টা শর্ত আছে। তার সবকটাই পূরণ করতে হবে।” এক কথায়, মরতে হলে সব দিক দেখেশুনে তবে মরুন। দেখে নিন ওদের দেওয়া শর্ত পূরণ হচ্ছে কি না। তবেই আপনার পরিবার ক্ষতিপূরণ পাবে।

আদপেই কৃষক ছিলেন না — এই অজুহাতে কৃষক আত্মহত্যার তালিকা থেকে কয়েক শত মানুষের নাম বাদ দেওয়া হয়েছে। “এঁদের নামে কোনও জমি নেই,” আধিকারিকরা বেশ জোর দিয়েই বললেন। তার মানে, আত্মহত্যাকারী মহিলা কৃষকরা বাদ পড়ে গেলেন। একইসঙ্গে, এমন জ্যেষ্ঠ পুত্র যিনি চাষাবাদ করেন কিন্তু জমি তখনও তাঁদের প্রৌঢ় বাবার নামেই থেকে গেছে, তাঁরাও বাদ পড়লেন। তালিকা থেকে বাদ গেলেন বহু আদিবাসী ও দলিত কৃষক, কারণ তাঁদের জমির পাট্টার বিষয়টা অধিকাংশ সময়েই অস্বচ্ছ থাকে।

এতহব বেড়াজাল সত্ত্বেও আত্মহত্যার সংখ্যা কিন্তু বাড়তেই থাকল। সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত [কৃষক আত্মহত্যা বিষয়ক] প্রতিবেদনগুলি মোক্ষম জায়গায় নাড়া দিতে শুরু করল — অর্থাৎ দিল্লির দরবারে। তাহলে কোন ফিকিরে এই সংখ্যাকে নামিয়ে আনা যায়? উচ্চাকাঙ্ক্ষী আমলারা এগিয়ে এলেন — আত্মহত্যা হিসেবে স্বীকৃতির যোগ্য এবং আত্মহত্যা হিসেবে স্বীকৃতির অযোগ্য — বিভাজনের এই নতুন দুটি ধারা নিয়ে। প্রথমটিই কেবল ‘কৃষক আত্মহত্যা’ হিসাবে পরিগণিত হবে। ২০০৬ সালে একটি সরকারি নথি এই বন্দোবস্ত চালু করল।

বিভিন্ন সারি (কলাম) সম্বলিত একটি ছক (টেবল) প্রস্তুত করা হল। তাতে সংখ্যা বসল, কিন্তু কেমনভাবে? কৃষক আত্মহত্যার মোট সংখ্যার পর এল “পরিবারের সদস্যের আত্মহত্যা” নামে আরও একটি ভাগ। অর্থাৎ পরিবারের সদস্য আত্মহত্যা করে থাকলে তাঁকে আর কৃষক বলে বিবেচনা করাই হল না। এর ফলে মোট কৃষক আত্মহত্যার সংখ্যায় ঘাটতি দেখানো গেল। তারপরের সারিতে এল, “ইতিমধ্যেই তদন্ত করা হয়ে গেছে এমন ঘটনা”, তাতে করে সংখ্যাটা আরও কমে গেল। পরবর্তী সারিটি একেবারে অভিনব — “আত্মহত্যা হিসাবে বিবেচনাযোগ্য”— অর্থাৎ সরকার যাঁদের ক্ষতিপূরণ পাওয়ার হকদার বলে মনে করে। ফলে ২০০৫ সালে, কৃষক আত্মহত্যার যে সারিটি শুরু হয়েছিল ২,৪২৫ দিয়ে, সেটি শেষ হল ২৭৩তে এসে (মোট সংখ্যার ১২ শতাংশেরও কম)। আর এইটাই হয়ে গেল কৃষক আত্মহত্যার সরকারি সংখ্যা। আর কেমন সুন্দর আত্মহত্যার সংখ্যার ‘হ্রাস’ প্রমাণ করা গেল।

এভাবেই এল ‘নকল আত্মহত্যার’ ধারণা। শববন্ধটির মানে এই নয় যে মানুষটি মারা যাননি বা তিনি আত্মহত্যা করেননি। এর মানে সরকার সোজা কথায় এই কথাটা মানতে নারাজ যে তিনি ঋণগ্রস্ত বা দুর্দশাগ্রস্ত হয়ে আত্মহত্যা করেছেন (বেশ কিছু ক্ষেত্রে আত্মহত্যার আগে আত্মহত্যাকারী এই কারণগুলিকে লিখিতভাবে জানিয়ে গেছেন)। সংকটাপন্ন জেলাগুলিতে অনুসন্ধান কমিটি স্থাপিত হয়েছিল আত্মহত্যাগুলি ‘আসল’ কি না যাচাই করতে। এই কমিটিগুলি যাচ্ছেতাই গাজোয়ারি শুরু করল — কখনও কখনও সারা মাসে যত আত্মহত্যা হয়েছে তার সবগুলিকেই ‘নকল’ ঘোষণা করে দিত। এইভাবে ছাঁটাই পর্ব চালানোর কারণে উপার্জনকারীর আত্মহত্যাজনিত মৃত্যুর পর অতি স্বল্প সংখ্যক পরিবারই শেষমেশ সরকারি ক্ষতিপূরণের মুখ দেখতে পায়।

এখনও এইভাবেই চলছে। রাজ্য বিধানসভায় এক প্রশ্নের উত্তরে শ্রী রাণে চার বছরে ঘটে যাওয়া হাজার হাজার ‘’ স্বীকৃতির অযোগ্য আত্মহত্যার’ তালিকা দিয়েছেন।

এতসবের পরেও ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরোর পরিসংখ্যানটি রয়েই গেল। এই সংখ্যা নিয়ে কোনও কারসাজিই করার ক্ষমতা এখনও তাঁদের নেই। কালক্রমে নিশ্চয় সেই তথ্যেও ভেজাল মিশবে। কিন্তু কারবার তো তাৎক্ষণিক রাজনীতি নিয়ে। অতএব একমাত্র উপায় এই তথ্যকে সম্পূর্ণভাবে উপেক্ষা করা। সেই কারণেই সংসদে মন্ত্রীর দেওয়া লিখিত জবাবে এই তথ্যের কোনও উল্লেখই পাওয়া যায় না। সেটা করলে যে আগের তুলনায় তফাতটা ধরা পড়ে যাবে।

২০০৭ সালে ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরোর দেওয়া তথ্যই তিনি দিয়েছিলেন যে ১৯৯৭ থেকে ২০০৫ সালের মধ্যে ১.৫ লক্ষ কৃষক আত্মহত্যা করেছেন। রাজ্যসভায় তারকা চিহ্নিত ২৩৮ নং প্রশ্নের উত্তরে (৩০শে নভেম্বর ২০০৭) শ্রী পাওয়ার যে তথ্য দিয়েছিলেন তা দ্য হিন্দু সংবাদপত্রে প্রকাশিত (নভেম্বর ১২-১৭) তথ্যের সঙ্গে হুবহু মিলে যায়। সরকারি পরিসংখ্যান অত্যন্ত খুঁটিয়ে যাচাই করে মাদ্রাজ ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ ইনস্টিটিউটের সঙ্গে কর্মরত কে নাগরাজের প্রস্তুত করা রিপোর্টের ভিত্তিতে দ্য হিন্দু সংবাদটি প্রকাশ করেছিল। তাঁর নিরীক্ষিত তথ্য ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরো থেকে নিয়েছিলেন। ভারতে ঘটে যাওয়া দুর্ঘটনাজনিত মৃত্যু ও আত্মহত্যা নামের রিপোর্টটি জাতীয় ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরো প্রতি বছর প্রকাশ করে থাকে। কেন্দ্রীয় গৃহ মন্ত্রকের পরিচালনাধীন জাতীয় ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরোই একমাত্র সংস্থা যেটি দেশের সব ধরনের আত্মহত্যার খতিয়ান রাখে।

ডঃ নাগরাজের এই সমীক্ষার অনুসরণে দ্য হিন্দু প্রতি বছর ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরোর থেকে তথ্য নিয়ে কৃষক আত্মহত্যার পরিসংখ্যান প্রকাশ করে। (এইসব তথ্য এনসিআরবির ওয়েবসাইটে পাওয়া যায়। যেমন, ২০০৮ সালের তথ্য অনুসারে ‘স্বনিযুক্ত’ (চাষ/চাষের সঙ্গে যুক্ত) বিভাগে কৃষক আত্মহত্যার সংখ্যা ১৬, ১৯৬। ( http://ncrb.nic.in/ADS12008/table-2.11.pdf- লিংকটিতে গিয়ে নিজেরাই দেখে নিতে পারেন)। ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরোর তথ্যের ভিত্তিতে ডঃ নাগরাজ অথবা দ্য হিন্দু সংবাদপত্রের প্রকাশিত পরিসংখ্যান আজ অবধি কেন্দ্রীয় বা রাজ্য সরকার অস্বীকার করতে পারেনি। তারা বরং নিজেরাই স্ববিরোধী তথ্য দিয়ে চলেছে।

সোজা কথায়, বিপিএল এপিএল রেশন কার্ড ইত্যাদি দারিদ্র সংক্রান্ত তথ্য নিয়ে সরকার যা করে থাকে, এ ক্ষেত্রেও তার নড়চড় হয়নি। কৃষক আত্মহত্যা তো শুধু পরিসংখ্যান নয় – এ তো রক্তমাংসের মানুষের মৃত্যু। কাজেই কৃষকের এই বিপন্নতায় জনরোষের মুখে পড়ে আত্মহত্যার পরিসংখ্যানে গরমিল ঘটানোর গরজটা স্বাভাবিকভাবেই বেশি।

অবশ্য ২০১১ সালের আদমসুমারি থেকেই অবস্থার অবনতি স্পষ্টতই প্রমাণ হয়ে যায়। এতেই দেখা যেতে পারে প্রতি রাজ্যে ঠিক কতজন কৃষক আছেন। মহারাষ্ট্রের মতো রাজ্যে দেখা যাবে সংখ্যাটা ২০০১ সালের চেয়ে অনেক কম। (২০০১ সালের আদমসুমারি দেখিয়েছিল যে ১৯৯১ সালের পর থেকে ৮০ লক্ষ মানুষ কৃষিকাজ ছেড়েছেন)। এখন অবধি, ডঃ নগরাজ কৃষক আত্মহত্যার যে হার দেখিয়েছেন (১০০,০০০ জন কৃষক প্রতি) তার সবটাই ২০০১ সালের পরিসংখ্যানের ভিত্তিতে। এই হিসেবে মহারাষ্ট্রে কৃষক আত্মহত্যার হার ২৯.৯। কৃষক সুমারি প্রকাশিত হলে অবস্থা আরও খারাপ আর আত্মহত্যার হার আরও তীব্রতম প্রমাণ হতে পারে। তবে কিনা পরিসংখ্যান নিয়ে কারচুপি আর ভেজালের কারবার চলতেই থাকবে।

প্রতিবেদনটি প্রথম প্রকাশিত হয়েছিল দ্য হিন্দু সংবাদপত্রে:
http://www.thehindu.com/opinion/lead/article428367.ece

অনুবাদ: চিলকা

P. Sainath is Founder Editor, People's Archive of Rural India. He has been a rural reporter for decades and is the author of 'Everybody Loves a Good Drought'.

Other stories by P. Sainath
Translator : Chilka

Chilka is an associate professor in History at Basanti Devi College, Kolkata, West Bengal; her area of focus is visual mass media and gender.

Other stories by Chilka