ভোট দেওয়ার যোগ্য, কিন্তু আধার-যোগ্য নয়

কুষ্ঠরোগের কারণে পার্বতী দেবীর আঙুল ক্ষয়ে গেছে। সেই কারণে লখনউ-এর এই জঞ্জাল-কর্মী এবং তাঁর মত হাজার হাজার মানুষ আধার কার্ড করাতে পারেন না। ফলত তাঁরা প্রতিবন্ধী পেনশন এবং রেশন তুলতে পারছেন না

৩০শে মার্চ, ২০১৮ | পূজা অবস্থী

ভুয়ো রেশন কার্ড নাকি আধার কার্ডের তথ্যে ত্রুটি?

নম্বর না মেলা, ভুল ছবি, উধাও হয়ে যাওয়া নাম, আঙুলের ছাপ নিয়ে গোলযোগ – অন্ধ্র প্রদেশের অনন্তপুর জেলায় আধার তার খেল দেখাচ্ছে। এর ফল ভুগতে হচ্ছে বিপিএল-তালিকায় থাকা মানুষদের, তাঁরা মাসের পর মাস রেশন সংগ্রহ করতে পারছেন না

২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ | রাহুল এম

Aadhaar robs Lakshmi of wealth
• Visakhapatnam, Andhra Pradesh

আধার চুরি করেছে লক্ষ্মীর টাকা

নিজেদের কঠিন শ্রমের মজুরি না পেয়ে অন্ধ্র প্রদেশের বিশাখাপত্তনম জেলার এমজিএনরেগা কর্মীরা বুঝতে পারছেন যে সম্পদের অধিষ্ঠাত্রী দেবীর অনুকরণে নাম হলেও আধারের গণ্ডগোলের হাত থেকে রেহাই পাওয়া যায় না

১৪ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ | রাহুল মাগান্তি 

‘আমাদের যেটুকু জুটত, আধার সেটাও ছিনিয়ে নিল’

উত্তরাখণ্ডের পাহাড়ি এলাকায় অবস্থিত আধার কেন্দ্রে পৌঁছানোর খরচ, নাগরিকদের নামের বানানে অজস্র ভুলভ্রান্তি এবং অন্যান্য খামতির জন্য চম্পাওয়াত জেলার অনেক বিধবা মহিলা, প্রতিবন্ধী মানুষজন এবং বৃদ্ধ-বৃদ্ধারা বহু মাস যাবত তাঁদের প্রাপ্য ভাতা পাচ্ছেন না

২রা ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ | অর্পিতা চক্রবর্তী

মানুষ চিনলেও, যন্ত্রের কাছে আপনি অচেনা

বেঙ্গালুরুর বস্তিগুলির বয়োজ্যেষ্ঠ নাগরিক, দেশান্তরি তথা অভিবাসী মানুষ, দিন মজুর, এমনকি শিশুরাও আঙুলের ছাপে গরমিলের জন্য প্রাপ্য রেশন থেকে বঞ্চিত – আধারের সঙ্গে তাদের এই নিরন্তর সংগ্রামে অবশ্যই আধার হামেশা জয়ী হয়

২৪শে জানুয়ারি, ২০১৮ | ভিশাকা জর্জ

Indu and Aadhaar – Act II, Scene 2
• Anantapur, Andhra Pradesh

ইন্দু এবং আধার – ২য় অঙ্ক, ২য় দৃশ্য

অন্ধ্র প্রদেশের অনন্তপুরে আধার সংক্রান্ত সমস্যায় জর্জরিত ছোট ছোট দলিত এবং মুসলিম স্কুল পড়ুয়াদের কথা পারির প্রতিবেদনে প্রকাশিত হওয়ার পর কিছু সদর্থক প্রাথমিক পদক্ষেপ গৃহীত হয়েছে

৩০শে জানুয়ারি, ২০১৮ | রাহুল এম

আধারের গেরো এবং নাম বিভ্রাট

“আমার নাম ইন্দু, কিন্তু আমার প্রথম আধার কার্ডটি সেটাকে ‘হিন্দু’ করে দিয়েছিল। তাই আমি একটি নতুন কার্ডের জন্য আবেদন করেছিলাম [সংশোধন করতে চেয়ে], কিন্তু তারা আবারও সেই ‘হিন্দু’ লিখে রেখেছে।” অতএব, ১০ বছর বয়সী দলিত বালিকা জে. ইন্দু এবং আমাদাগুরের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির অন্য চারজন শিক্ষার্থী এই বছর তাদের প্রাপ্য শিক্ষা বৃত্তি পাবে না। কারণ তাদের নামের বানানগুলি আধার কার্ডে ভুল মুদ্রিত হয়েছে।

১৬ই জানুয়ারি, ২০১৮ | রাহুল এম


আধার (আর্থিক ও অন্যান্য ভর্তুকি, সহায়তা ও পরিষেবাদির প্রত্যক্ষ বিতরণ) আইন, ২০১৬

একটি অনন্য সনাক্তকারী সংখ্যার মধ্যমে, “কার্যকরী এবং স্বচ্ছ” উপায়ে ভারতীয় নাগরিকদের ভর্তুকি, অনুদান, ভাতা, এবং অন্যান্য পরিষেবা প্রদানই আধার আইনের লক্ষ্য। এই আইনের অধীনে স্থাপিত ইউনিক আইডেন্টিফিকেশন অথরিটি অফ ইন্ডিয়া (ইউআইডিএআই) অর্থাৎ বিশিষ্ট পরিচয়সংখ্যা প্রদানকারী কর্তৃপক্ষ ভারতের সকল নাগরিককে আধার সংখ্যার জন্য পঞ্জিকরণে সহায়তা, তাদের পরিচয় সংক্রান্ত দস্তাবেজ যাচাই, আধার সংখ্যা প্রদান, এবং ব্যক্তি দ্বারা সরকারি বা বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে প্রদত্ত তথ্যের প্রামাণ্যতা বিচার করার জন্য দায়বদ্ধ।

মার্চ ২৬, ২০১৬ | আইন ও বিচার মন্ত্রক, ভারত সরকার

বাংলা অনুবাদ: স্মিতা খাটোর

স্মিতা খাটোর পিপলস আর্কাইভ অফ রুরাল ইন্ডিয়ায় ট্রান্সলেশনস কোওর্ডিনেটর এবং বাংলা অনুবাদক। মুর্শিদাবাদ জেলার মানুষ স্মিতা অধুনা কলকাতা নিবাসী।