বিহারের গ্রামের শত শত কৃষক - নারী এবং পুরুষ উভয়েই - অনেকেই আবার তাঁদের সন্তানসন্ততিসহ - ১৩২৫৭ জন সাধারণ এক্সপ্রেস ট্রেনে চেপে ১৬ ঘন্টায়, ৯৯০ কিলোমিটার পথ পেরিয়ে অবশেষে ২৯শে নভেম্বর, ২০১৮ তারিখে দুপুর দুটো নাগাদ পূর্ব দিল্লির আনন্দ বিহার স্টেশনে পৌঁছোলেন।

ট্রেন থেকে যাঁরা প্রথমেই নামলেন, তাঁরা অন্যদের জন্য অপেক্ষা করার ফাঁকে সময় নষ্ট না করে, রামলীলা ময়দানে মিছিল নিয়ে যাওয়ার জন্য প্রস্তুত হতে হতে স্লোগানে মুখর হয়ে উঠলেন: পেনশন আমাদের দিতে হবে! স্বামীনাথন কমিশনের সুপারিশ বাস্তবায়িত করতে হবে! দেড়গুণ ন্যূনতম সহায়ক মূল্য দিতে হবে...”  

সেদিন সকালের দিকে আরও যে সকল কৃষকেরা অন্যান্য ট্রেন ধরে এসে পৌঁছেছিলেন, তাঁরা আমাদের বলছিলেন তাঁদের দাবিদাওয়া, সমস্যার কথা; বৃষ্টিনির্ভর চাষ ও খরা, ডিজেল এবং সারের ক্রমবর্ধমান খরচের মতো দীর্ঘকাল ধরে অমীমাংসিত বিষয়গুলি এবং বাজারে ফসলের দরে বিন্দুমাত্র বৃদ্ধি না হওয়ায় তাঁদের চূড়ান্ত দুর্দশা ইত্যাদির কথা। তাঁরা বলছিলেন এই পরিস্থিতিতে সন্তানদের শিক্ষা বা পরিবারের জন্য ভদ্রস্থ চিকিৎসার ব্যবস্থা করা কতটা কষ্টসাধ্য হয়ে উঠেছে।

ভিডিওটিতে যে সকল কৃষকদের দেখা যাচ্ছে তাঁরা বিহারের মাধেপুরা, সীতামাঢ়ি ও সিওয়ান জেলার গ্রামগুলি থেকে এসেছিলেন।

বাংলা অনুবাদস্মিতা খাটোর

স্মিতা খাটোর ([email protected]) কলকাতার মানুষ। নারীর অধিকার সংক্রান্ত কাজকর্মে তিনি আগ্রহী। রুজির তাগিদে গ্রাম তথা মফস্বল থেকে আসা সাধারণ মানুষের জীবনের নানান দিক তাঁকে ভাবায়।

নমিতা ওয়াইকার লেখক, অনুবাদক এবং পিপলস আর্কাইভ অফ রুরাল ইন্ডিয়া, পারির নির্বাহী সম্পাদক। একটি রসায়ন ডেটাবেস সংস্থায় তিনি অংশীদার। অতীতে একজন জৈবরসায়নবিদ এবং সফ্টওয়্যার প্রকল্প ব্যবস্থাপক হিসেবে কাজ করেছেন।

Other stories by Namita Waikar
Samyukta Shastri

সংযুক্তা শাস্ত্রী পিপলস আর্কাইভ অফ রুরাল ইন্ডিয়ায় কনটেন্ট কোর্ডিনেটর হিসেবে কর্মরত। তিনি পুণের সিমবায়োসিস সেন্টার ফর মিডিয়া অ্যান্ড কমিউনিকেশন থেকে মিডিয়া স্টাডিজে স্নাতক এবং মুম্বইয়ের এসএনডিটি উইমেনস বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্যে স্নাতকোত্তর স্তরের পড়াশোনা করেছেন।

Other stories by Samyukta Shastri